ভারতের সোনার মেয়ে হিমা দাস শুক্রবার অসম পুলিশের ডিএসপি পদে নিযুক্ত হলেন।

বিশেষ প্রতিবেদন, ২৬ ফেব্রুয়ারী

হিমা দাস ২০১৮ সালের পর থেকে নামটি সবার কাছে খুব পরিচিতি পেয়েছে । কিন্তু তার আগে তাঁর গ্রামে সে একজন চাষীর মেয়ে হিসেবে পরিচিত ছিল। হিমা দাস তার জীবনে কি নিয়ে সে তার ক্যারিয়ার শুরু করবে সেটা ঠিক করতে পারছিলেন না এমন সময় তার স্কুলের এডুকেশন বিভাগের এক শিক্ষক তাকে পরামর্শ দেন স্প্রিন্টার হওয়ার। কারণ এর আগে তার স্বপ্ন ছিল যে সে একজন ফুটবল প্লেয়ার হবে।

কিন্তু স্প্রিন্টার হওয়ার পরেই সে ২০১৮ সালে ইন্দোনেশিয়া তে গিয়ে ২ টি গোল্ড মেডেল ভারতে নিয়ে আসে। সবথেকে কনিষ্ঠতম হিসাবে ইন্ডিয়ায় রেকর্ড গড়ে তোলে তারপরই সে পরিচিতি পায় একজন আ্যথিলেট হিসেবে।তারপর তাকে সবাই বিকল্প নাম দেয় ধিং এক্সপ্রেস

sports_14

২০১৯ সালে সে আসাম বোর্ড থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন হিমা দাস ।তারপর ধীরে ধীরে একের পর এক গোল্ড মেডেল  ও সিলভার এনে দিয়েছেন  ভারতকে।আজ  ২৬ শে ফেব্রুয়ারি শুক্রবার আসাম সরকার তাকে আসাম পুলিশের ডিএসপি পদে নিযুক্ত করেন।

sports_14

আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল শুক্রবার হিমা দাস এর হাতে আনুষ্ঠানিকভাবে অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার তুলে দেন।এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের উচ্চপদস্থ পুলিশকর্মীরা এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।রাজ্য সরকারের তরফ থেকে এই সম্মান পেয়ে হীমা জানান” ছোটবেলা থেকে তাঁর ইচ্ছা ছিল একজন পুলিশ অফিসার হওয়ার কিন্তু আজ সেই স্বপ্নটা সত্যি হলো শুধুমাত্র একজন অ্যাথলেটিক সাথে পরিচিতি পাওয়ার পরেই”।

sports_14

সেজন্য তিনি আসাম সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।সোনাজয়ী ধিং এক্সপ্রেস এখন একজন পুলিশ অফিসার।দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করার সাথে সাথে তাকে(হিমা দাস) এবার রাজ্য সরকারের দায়িত্ব সমানভাবে সামলাতে হবে।হিমা দাস জানান “আসাম পুলিশ যে তার উপর ভরসা করে তাকে দেশের এত বড় গুরুভার তুলে দিয়েছে তার হাতে সেই দায়িত্ব সে পালন করবে”।

sports_14

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *